খোবায়েব শাহাদাত বরণ ( হাদিসের গল্প)


রাসূল (ছাঃ) একবার দশ ব্যক্তিকে গোয়েন্দা হিসাবে সংবাদ সংগ্রহের জন্য
পাঠালেন এবং আছিম ইবনু ছাবিত আনছারীকে তাদের নেতা নিযুক্ত করেন,
যিনি আছিম ইবনু ওমর ইবনুল খান্তাবের নানা ছিলেন। তাঁরা রওনা
করলেন, যখন তাঁরা উসফান ও মক্কার মাঝে হাদআত নামক স্থানে
পৌছেন, তখন হুয়ালে গোত্রের একটি প্রশাখা- যাদেরকে লেহইয়ান বলা
হয়, তাদের নিকট তাদের ব্যাপারে আলােচনা করা হয়। তারা প্রায় দুশত
তীরন্দাজকে
তাঁদের পিছু ধাওয়ার জন্য পাঠান। এরা তাঁদের পদচিহ্ন দেখে
চলতে থাকে। ছাহাবীগণ মদীনা হতে সঙ্গে নিয়ে আসা খেজুর যেখানে
বসে খেয়েছিলেন, অবশেষে এরা সে স্থানের সন্ধান পেয়ে গেল। তখন এরা
বলল, এগুলাে ইয়াছরিবের (মদীনা) খেজুর অতঃপর এরা তাদের পদচিহ্ন
দেখে চলতে লাগল। যখন আছিম ও তাঁর সাথীগণ এদের দেখলেন, তখন
তাঁরা একটি উঁচু স্থানে আশ্রয় গ্রহণ করলেন। আর কাফিররা তাঁদের ঘিরে
ফেলি এবং তাদেরকে বলতে লাগল, তােমরা অবতরণ কর ও স্বেচ্ছায়
বন্দীত্ব বরণ কর। আমরা তােমাদের প্রতিক্রতি দিচ্ছি যে, তােমাদের মধ্য
হ'তে কাউকে আমরা হত্যা করব না। তখন গােয়েন্দা দলের নেতা আছিম
ইবনু ছ্থাবিত (রাঃ) বললেন, আল্লাহর কসম! আমি তাে আজ কাফিরদের
নিরাপত্তায় অবতরণ করব না। হে আল্লাহ! আমাদের পক্ষ থেকে আপনার
নবীকে সংবাদ পাঠিয়ে দিন। অবশেষে কাফিররা তীর নিক্ষেপ করতে শুরু
করল। আর তারা আছিম (রাঃ) সহ সাত জনকে শহীদ করল।

অতঃপর অবশিষ্ট তিনজন খুবাইব আনহারী, যায়দ ইনু সাছিনা (রাঃ) ও
অপর একজন তাদের দেয়া প্রতিশ্রুতি ও অঙ্গীকারের উপর নির্ভর করে
তাদের নিকট অবতরণ করলেন। যখন কাফিররা তাদেরকে আয়ত্বে নিয়ে
নিল, তখন তারা তাদের ধনুকের রশি খুলে ফেলে তাদেরকে বেঁধে ফেলল।
তখন তৃতীয় জন বলে উঠলেন, 'গোড়াতেই বিশ্বাসঘাতকতা! আল্লাহর
কসম! আমি তোমাদের সঙ্গে যাব না, যারা শহীদ হয়েছেন আমি তাঁদেরই
পদাঙ্ক অনুসরণ করব'। ফলে তারা তাকে টেনে-হিচড়ে তাদের সাথে নিয়ে
যাওয়ার চেষ্টা করল। কিন্তু তিনি যেতে স্বীকার করলে কাফিররা তাকে
শহীদ করে ফেলে এবং খুবাইব ও ইবনু দাহিনাকে নিয়ে চলে যায়।
অবশেষে তাদের উভয়কে মক্কায় বিক্রয় করে ফেলে।
এটা বদর যুদ্ধের পরের কথা। তখন খুবাইবকে
হারিছ ইবনু 'আমির
পুত্রগণ ক্রয় করে নেয়। আর বদর যুদ্ধের দিন খুবাইব (রাঃ) হারিছ ইবনু
আমিরকে হত্যা করেছিলেন। খুবাইব (রাঃ) কিছু দিন তাদের নিকট বন্দী
থাকেন। ইনু শিহাব (রহঃ) বলেন, আমাকে ওবায়দুল্লাহ ইবনু ইয়ায
অবহিত করেছেন, তাকে হারিছের কন্যা জানিয়েছে যে, যখন হারিছের
পুত্রগণ খুবাইব (রাঃ)-কে শহীদ করার সর্বসম্মত সিন্ধান্ত নিল, তখন তিনি
তার কাছ থেকে ক্ষৌরকার্য সম্পন্ন করার উদ্দেশ্যে একটা ক্ষুর ধার
চাইলেন। তখন হারিছের কন্যা তাকে একখানা ক্ষুর ধার দিল। সে সময়
ঘটনাক্রমে আমার এক ছেলে আমার অজ্ঞাতে খুবাইবের নিকট চলে গেলে
তিনি তাকে ধরেন এবং আমি দেখলাম যে, আমার ছেলে বাইকের উরুর
উপর বসে রয়েছে এবং খুবাইবের হাতে রয়েছে ক্ষুর। আমি খুব ভয় পেয়ে
গেলাম। খুবাইব আমার চেহারা দেখে তা বুঝতে পারলেন। তখন তিনি
বললেন, তুমি কি এ ভয় করছে যে, আমি এ শিশুটিকে হত্যা করে ফেলব?

কখনাে আমি তা করব না। আল্লাহর কসম। আমি খুবাইবের মত উত্তম বন্দী
কখনাে দেখিনি। আল্লাহর শপথ! আমি একদা দেখলাম, তিনি লােহার
শিকলে আবদ্ধ অবস্থায় ছড়া হতে আঙ্গুর খাচ্ছেন, যা তার হাতেই ছিল।
অথচ এ সময় মক্কায় কোন ফলই পাওয়া যাচ্ছিল না। ছিল না।

বলতে, এ তাে ছিল আল্লাহ তাআলার পক্ষ হতে প্রদত্ত জীবিকা, যা তিনি
খুবাইব কে দান করেছেন। অতঃপর তারা খুবাইবকে শহীদ করার উদ্দেশ্যে
হারামের নিকট হতে হিয়ের দিকে নিয়ে বেরিয়ে পড়ল, তখন খুবাইব
(রাঃ) তাদেরকে বললেন, আমাকে দু'রাক'আত ছালাত আদায় করতে
দাও। তারা তাকে সে অনুমতি দিল। তিনি দু'রাক'আত ছালাত আদায়
করে নিলেন। অতঃপর তিনি বললেন, তােমরা যদি ধারণা না করতে যে,
আমি মৃত্যুর ভয়ে ভীত হয়ে পড়েছি তবে আমি ছালাতকে দীর্ঘ করতাম। হে
আল্লাহ তাদেরকে এক এক করে ফংস করুন। (অতঃপর তিনি এ কবিতা
দুটি আবৃত্তি করলেন)

أمالي حين أقتل مسلنا على أي شق كان لله مرعي
و
وذلك في ذات الإله وإن بشا بارك على أوصال شلو منع

আমি কোন কিছুরই পরােয়া করিনা যখন আমি মুসলিম হিসাবে নিহত হই।
আল্লাহর রাহে যেভাবেই আমাকে পর্যদুস্ত করা হউক, তা কেবল আল্লাহর
জন্যই করা হচ্ছে। তিনি ইচ্ছা করলে আমার বিচ্ছিন্ন অঙ্গ সমূহে বরকত দান করবেন।
অবশেষে হারিছের পুত্র তাকে শহীদ করে ফেলে। বত যে মুসলিম
ব্যক্তিকে বন্দী অবস্থায় শহীদ করা হয় তার জন্য দুই রাকাত ছালাত
আদায়ের এ রীতি খুবাইব (রাঃ)-ই প্রবর্তন করে গেছেন। যেদিন আহিম
(রাঃ) শাহাদতবরণ করেছিলেন, সেদিন আল্লাহ তাআলা তাঁর দোআ কবুল
করেছিলেন। সেদিনই আল্লাহর রাসূল (ছাঃ) তাঁর ছাহাবীগণকে তাঁদের
সংবাদ ও তাদের উপর যা যা আপতিত হয়েছিল সবই অবহিত
করেছিলেন। আর যখন কুরাইশ কাফিরদেরকে এ সংবাদ পৌছানাে হয় যে,
আছিম (রাঃ)-কে শহীদ করা হয়েছে তখন তারা তাঁর কাছে এক লােককে
পাঠায়, যাতে সে বাক্তি তাঁর লাশ হতে কিছু অংশ কেটে নিয়ে আসে, যেন
তারা তা দেখে চিনতে পারে। কারণ বদর যুদ্ধের দিন আছিম (রাঃ)
কুরাইশদের এক নেতৃস্থানীয় ব্যক্তিকে হত্যা করেছিলেন। আছিমের লাশের
(রক্ষার জন্য) মৌমাছির ঝাক প্রেরিত হল, যারা তাঁর দেহ আবৃত করে
রেখে তাদের যড়যন্ত্র হতে হেফাযত করল। ফলে তারা তাঁর শরীর হাতে
এক খণ্ড গােশতও কেটে নিতে পারেনি।
আবু হুরায়রা (রা) থেকে বর্ণিত, বুখারী হা/৩০৪৫ জিহাদ ও সিয়ার অধ্যায়,
অনুচ্ছেদ-১৭০, আহমাদ হা/৭৯১৫
শিক্ষা ।

১. সর্বদা নেতার অধীনে সংঘবদ্ধ জীবন যাপন করতে হবে।
২. ওয়াদা ভঙ্গ করা কাফির-মুশরিকদের চিরাচরিত অভ্যাস।
৩. নারী ও শিশুর প্রতি ইসলামের সহমর্মিতা সীমা। এজন্য যুদ্ধের
ময়দানেও তাদেরকে আক্রমণ করতে নিষেধ করা হয়েছে।
৪, শাহাদাত মুমিনের কাঙ্গিত লক্ষ্য।

Post a comment

0 Comments